Freelance

কিভাবে শুরু করবেন ফ্রিল্যান্সিং একদম ব্যাসিক থেকে প্রোফেশনাল ১১ [প্রশ্নত্তর পর্ব ]

প্রশ্ন ০১। ভাইয়া ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবো?
আপনি আগে কাজটা শিখবেন । আমাকে আবার জিজ্ঞাস করবেন না, “ভাই কি কাজ শিখবো?” ধরুন আমি আপনাকে বললাম আপনি এনিমেশন নিয়ে কাজ করেন । তাহলে আপনি এনিশেমন নিয়ে কাজ শিখলেন কিন্তু মার্কেটপ্লেসে গিয়ে দেখলেন এনিমেশন এর কাজ অনেক কম । কিন্তু যে সব প্রোজেক্ট আসে খুব বড় বড় প্রজেক্ট । লোভ দেখাইলাম আরকি ।

প্রশ্ন ০২। ভাইয়া কাজ পাচ্ছি না, দ্রুত কিভাবে কাজ পাবো?
যেভাবে আপনি ফ্রিলান্সিং সেবা প্রদান করে আয় করতে পারবেন তারজন্য আপনাকে প্রথমে নির্দিষ্ট কোনো বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। যে বিষয়ে আপনি দক্ষতা অর্জন করবেন সেই বিষয়ে সেবা প্রদানের মাধ্যমে তবেই বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে আপনি একজন ফ্রীল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে পারবেন।
জনপ্রিয় কিছু সার্ভিস সমূহ যে গুলো শিখার মাধ্যমে আয় করতে পারবেনঃ

  1. Web Development
  2. Web Design
  3. Android Development
  4. IOS Development
  5. Graphics Design
  6. Digital Marketing
  7. WordPress
  8. SEO
  9. Video Editing
  10. Article Writing
  11. Data Entry
  12. Animation Video Create
  13. Virtual Assistant
  14. Motion Graphics
  15. Shopify

প্রশ্ন ০৩। ভাইয়া আমি ন্যাশনাল আইডি কার্ড পাইনি/আমার ন্যাশনাল আইডি কার্ড নেই তাহলে আইডি ভেরিফাই করবো কিভাবে?
আপনার নিজের ন্যাশনাল আইডি/পাসপোর্ট /ড্রাইভিং লাইসেন্স এগুলো আছে? এড্রেস ভেরিফাই এর জন্য দরকার হবে ইউটিলিটি বিলের কপি যেমনঃ গ্যাস/পানি/বিদ্যুৎ/ব্যাংক স্টেটমেন্ট এসব যদি থাকে তাহলে আপনি আপনার ফ্রিল্যান্সার একাউন্ট ভেরিফাই করতে পারবেন। ভেরিফাই করতে হলে আপনাকে সেটিংস থেকে ভেরিফাই সেন্টারে গিয়ে সমস্ত অরিজিনাল ডকুমেন্টস সাবমিট করতে হবে। সব ঠিকঠাক থাকলে ৫ মিনিট থেকে ৪৮ ঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে। এরপর আপনাকে জানিয়ে দেবে।
আমার নিজের এক্সপেরিয়েন্স থেকে বলছি। আমার নিজের কোনো আইডি নেই। যা আছে সব আব্বুর নামে আর আমার আংকেল এর নামে। প্রথম আমি ভেরিফাই করতে গিয়েছিলাম আমার টেম্পোরারি কার্ড দিয়ে। অর্থাৎ স্মার্ট কার্ড আসার পূর্বে যে কার্ড ছিলো সেটা দিয়ে। কিন্তু প্রথমবার সাবমিট করার ১ঘন্টা পরে আমাকে জানানো হয় তারা এই কার্ড এক্সেপ্ট করবে না। দ্বিতীয় বার যদি সাবমিট করি তাহলে একাউন্ট ক্লোজ করে দেবে। এরপরে আব্বুর স্মার্ট কার্ড দিয়ে আইডি ভেরিফাই করে ফেলি। কিন্তু আইডিতে আমার নিজের নামই দেখায়, আব্বুর নাম না। নিজের নাম দেখাতে চাইলে কমেন্ট কইরেন ।

প্রশ্ন ০৪। ভাইয়া প্রপোজাল কিভাবে লিখলে দ্রুত ক্লায়েন্টের নজরে যেতে পারবো?
প্রোজেক্ট বুঝে বিড করবেন । সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে বিড প্রপোজাল লিখবেন । ক্লায়েন্ট যে বাজেট উল্লেখ করে যেমনঃ ১০-৩০ ডলার। আপনি চেষ্টা করবেন সঠিক পরিমাণে বিড করার। তার আগে অবশ্যই আপনাকে প্রোজেক্ট ডিটেইলস পড়ে নিয়েই বিড করতে হবে। যদি আপনার কাছে মনে হয় যে ক্লায়েন্ট কম দামে প্রোজেক্ট ছেড়েছে তাহলে আপনি আপনার মত করে বিড করতে পারেন । ধরুন, ক্লায়ন্টের একটা কন্টেন্ট লিখতে হবে, সেক্ষেত্রে ক্লায়েন্ট ১০-৩০ ডলার প্রজেক্ট বাজেট সেট করে দিয়েছে। তাহলে এখানে বিড এমাউন্ট এর বক্সে আপনার নিজের বাজেট লিখবেন, পাশের বক্সে সময়সীমা উল্লেখ করবেন । আপনি এই কাজ কত দিনের মধ্যে শেষ করতে পারবেন সেটা লিখুন । এরপরে প্রজেক্টে ক্লায়েন্ট কি চেয়েছে সে ব্যাপার নিয়ে প্রোপোজাল লিখুন এরপরে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুণ, ব্যাস হয়ে গেলো আপনার প্রথম বিড । এভাবে প্রজেক্ট বুঝ বুঝে বিড করা শুরু করে দিবেন ।

প্রশ্ন ০৫। ভাইয়া একই পিসিতে একাধিক আইডি চালালে কি সমস্যা হবে?
আপনি একই পিসিতে একাধিক আইডি চালাতে পারবেন কিন্তু কোনো আইডির সাথে লেনদেন করতে পারবেন না । লেনদেন করলে আপনার সব গুলো আইডি চান্দে চলে যেতে পারে যদি কেউ রিপোর্ট করে । সুতরাং এদিকে নজর রাখবেন ।

প্রশ্ন ০৬। ভাইয়া আমি কাজ বুঝতে পারিনি কিন্তু কাজ নিয়েছি, আমি বুঝতেছিনা এই কাজ শেষ করবো কিভাবে একটু হেল্প করবেন?
এই কাজ করবেন না । আপনি যে কাজ বুঝতে পারেন নাই সেই কাজ কেন নিবেন আন্দাজে? আপনি নিজেই যদি বুঝতে না পারেন তাহলে অন্যকে দিয়ে যদি করাতে চান তাহলে কিভাবে তাকে বুঝাবেন? সুতরাং কাজ নেওয়ার আগে ভেবে চিনতে নেবেন ।

প্রশ্ন ০৭। ভাইয়া আমি কাজ করেছি কিন্তু আমার টাকা আটকে গেছে আমি কি করবো এখন?
টাকা আটকে যাওয়ার অনেক গুলো কারণ আছে । সেগুলো হলো, ক্লায়েন্ট এর আইডী ভেরিফাইড না । ক্লায়েন্টের পেমেন্ট ম্যাথড এর সমস্যা থাকার কারণে ফ্রিল্যান্সার এডমিন থেকে আপনার টাকা আটকে দেবে বা ব্লক করে দেবে। এইটাকা আপনি তখই উইথড্র করতে পারবেন যখন আপনার ক্লায়েন্টের আইডি ভেরিফাইড হবে । এছাড়া বিস্তারিত জানার জন্য সাপোর্টে কথা বলতে পারেন support@freelancer.com.

প্রশ্ন ০৮। ভাইয়া ফ্রিল্যান্সার থেকে টাকা তুলতে হলে কি আইডি ভেরিফাই করা বাধ্যতামূলক?
আইডি ভেরিফাই করা বাধ্যতামূলক না কিন্তু আমি আপনাকে অনুরোধ করবো আইডি ভেরিফাই করে এরপরে আইডি থেকে টাকা উইথড্র দেবেন । কারণ, ফ্রিল্যান্সার থেকে এমন ভাবে আইডি সাসপেন্ড করে যা বুঝার ক্ষমতা নেই । আইডি সাস্পেন্ড হলেই বলে দেবে ট্রামস অ্যান্ড কন্ডিশন ভেংগেছেন । তাই আমি অনুরোধ করবো আগে ভেরিফাই করেন এরপরে উইথড্র করেন ।

প্রশ্ন ০৯। ভাই বিড রেস্ট্রিকশন কি?
উত্তরঃ আপনি ক্লায়েন্টের প্রজেক্টে যে প্রোপোজাল দিয়ে কাজ পাওয়ার জন্য দরখাস্ত সাবমিট করেন সেটা হলো একটা বিড। আর এই বিড থেকে আপনাকে নিষিদ্ধ করলে আপনি বিদ করতে পারবেন না। এককথায় আপনার কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। ক্লিয়ার?

প্রশ্ন ১০। আচ্ছা ভাই বিড রেস্ট্রিকশন কত দিন হয় বা কিভাবে শুরু হয়?
উত্তরঃ মনে করেন, উলটা পালটা বিড করা শুরু করেছেন। একটানা একই প্রপোজাল মেরে যাচ্ছেন ২৪ঘন্টা পরে আপনাকে জানাবে আপনার আইডি বিড রেস্ট্রিকশনে পড়েছে।

প্রশ্ন ১১।  আচ্ছা ভাই বিড রেস্ট্রিকশন কয় দিন থেকে কয় দিন পর্যন্ত থাকে?
উত্তরঃ সর্বনিম্ন মিনিট থেকে ফ্রিল্যান্সার এডমিনিস্ট্রেটর থেকে যতদিন ইচ্ছা রেস্ট্রিকশন বহাল রাখবে।

প্রশ্ন ১২। বিড রেস্ট্রিকশনে পড়লে কি আইডি ক্লোজ হবার সম্ভাবনা আছে?
উত্তরঃ আইডি ক্লোজ হবার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। কিন্তু এই রেস্ট্রিকশন চলতে থাকবে লং টার্ম পর্যন্ত।

প্রশ্ন ১৩। ভাই আমি এই ঝামেলা থেকে বাঁচবো কিভাবে?
উত্তরঃ সহজ হিসাব। প্রজেক্ট পড়ুন ভালোভাবে। এরপরে প্রজেক্ট এর ব্যাপারে লিখুন। ক্লায়েন্ট যেটা চেয়েছে সেটাই তুলেধরুণ। আজাইরা কিছু লিখবেন না। উনার যে স্কিল লাগবে শুধু সেটা নিয়েই লিখুন। আপনার আরো যদি স্কিল থাকে সেটা উল্লেখ না করলেও চলবে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে বিড সাবমিট করতে পারেন।

প্রশ্ন ১৪। এতো লেখার সময় কই ভাই? এতো লিখতে গেলে তো সময় পাবো না।
উত্তরঃ তাহলে রেস্ট্রিকশনে পড়লে সময় গুলো কই থেকে আসবে ভাই? কমেন্টে উত্তর দিয়েন :p

প্রশ্নঃ ১৫। যারা ফার্স্ট বিডার হয় তাদের নাকি প্রোজেক্ট পাওয়ার চান্স বেশি। এটা কি সত্য নাকি?
উত্তরঃ যে এই কথাটা বলেছে তাকে আবার শুরু থেকে শেখান আপনি। কারণ, ফার্স্ট বিডারকে ক্লায়েন্ট বোটের সাথে তুলনা করেন। ক্লায়েন্ট মনে করেন, এটা একটা ব্রাউজার এক্সটেনশন। যার সাহায্যে অটোবিড করে যাচ্ছেন। এই জন্য তাদের নক করা থেকেও বিরত থাকে। ফ্রিল্যান্সার ডট কম যাদের রিকোমেন্ড করে তাদের আইডির রেটিং, আর্নিং রেটিং পয়েন্ট, প্রোজেক্ট কম্পলিট রেটের গড় হিসেব করে রিকোমেন্ড করে। সুতরাং এটা মাথা থেকে বের করে ফেলুন, “যে আগে বিড করবে সে আগে প্রোজেক্ট পাবে”। মাথায় এটা ঢুকিয়ে নেন, “প্রজেক্ট বুঝে যে প্রোপোজাল সাবমিট করবেন, প্রজেক্ট এর মূল বিষয় যদি প্রোপোজাল এর মাধ্যেমেই বুঝিয়ে দেওয়া যায় তাহলে ৯০% প্রোজেক্ট পাওয়ার চান্স থাকে”।

প্রশ্ন ১৬। আমি বিড করে যাচ্ছি কিন্তু প্রজেক্ট পাচ্ছিনা কেন ভাই?
উত্তরঃ আমি উপরে উত্তর দিয়েছি সেটা ফলো করেন।

আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে কমেন্টে প্রশ্ন করবেন । আশা করি আপনার প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবো ইনশাহ আল্লাহ । ধন্যবার সবাইকে কষ্ট করে পড়ার জন্য। দেখা হবে আগামীতে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

লেখাঃ এম এইচ মামুন । 

#StayHome #SaveLife

MH Mamun

{শেখাও}, {আর না হলে শেখো} {যদি চুপ চাপ থাকো} {তাহলে তোমার ফাঁকা খুলি দিয়ে কি হবে?}

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

We're glad you stopped by!

But please understand that without advertising this website wouldn't be here. We serve responsible ads and ask that you disable your ad blocker while visiting Please click here after you have disabled your adblocker on this site